‘ব্যাঙ্কের বই দুবেলা চেক করি’, মধ্যবিত্তদের বর্তমান অবস্থা তুলে ধরলেন রুদ্রনীল

রাপ্র ডেস্ক: দিনে দিনে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। লকডাউনের মেয়াদ ক্রমশ বেড়েই চলেছে। কারণ করোনা সংক্রমণ রুখতে এ ছাড়া আর কোনও উপায় নেই। তবে এই লকডাউনের জেরে সিঁদুরে মেঘ দেখছেন অনেকেই। পকেটে টান পড়ছে মধ্যবিত্তের।

বিশেষ করে ব্যবসায়ী, শিল্পী, বেসরকারি চাকুরিজীবীরা জানেন না এভাবে আর কতদিন চলবে। কখন হয়তো চাকরিটাই আর থাকবে না। থাকলেও হয়তো বেতন কাটা যাবে। সব ভেবে জর্জরিত মধ্যবিত্ত।

এই মধ্যবিত্তদের নিয়েই একটি ভিডিওয় কবিতার ভাষায় স্পষ্ট বক্তব্য রাখলেন অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ। ‘ভালো আছি, ইতি মধ্যবিত্ত’ নামের এই ভিডিওয় রুদ্রনীল তুলে ধরেছেন মধ্যবিত্তদের অবস্থা। এই সংকটের দিনে মধ্যবিত্ত জানে না , কবে তার অফিস খুলবে।

এদিকে দেনার বোঝা বেড়েই চলেছে। কিন্তু সরকার বার বার বলে দিয়েছে ইতিবাচক থাকতে হবে। মাস্ক পরতে হবে এবং স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুতে হবে। আর বলতে হবে, ‘ভালো আছি’। তাই অভিনেতার কথায়, খালিপেটে মরে যাও, করোনায় মোরো না। তুমি হও সেনাপতি সামরিক।

যাই হয়ে যাক, মধ্যবিত্তকে বলতে হবে, ভালো আছি। রুদ্রনীল বলছেন, “ব্ল্যাকে আমি মদ কিনি, ঘুষ দিয়ে সিগারেট, আগুন দামে দেখিনি সবজি। এভাবেই চলে যদি মাত্র আর এক মাস, দেনাতেই ডুবে যাবে কবজি।”

এই অবস্থায় হয়তো জানলায় গ্রিল ধরে দাঁড়িয়ে ভালো আছি বলা ছাড়া আর কোনও উপায় থাকবে না। তিনি আরও বলছেন, “মদের লাইনে আমি দাঁড়াতে লজ্জা পাই, নিউজ চ্যানেল করে ঘুরঘুর। টুক করে ছবি তুলে, বিখ্যাত করে দিলে, বউয়ের ধ্যাতানি আছে ভরপুর।”

সংসারে টান পড়লেও সম্মানকে বেছে নেওয়া মধ্যবিত্ত বাঙালির কথাও বলেন অভিনেতা। রুদ্রনীলের তৈরি চরিত্র ‘সুশান্ত পারিয়াল’রা তাই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা এলেও চাল ডাল নেন না। রুদ্রনীলের এই ভিডিও মুহূর্তে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। ভিডিওটি শেষও করেন অভিনেতা একই কথা বলে- ‘ভালো আছি। ভালো আছি। ভালো আছি।’

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Next Post

বগুড়ায় দ্রুতগামী ট্রাকের ধাক্কায় পা হারালেন ছেলে-মেয়েসহ বাবা

বৃহস্পতি মে ৭ , ২০২০
বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ায় মোটর সাইকেল যোগে বাড়ি ফেরার পথে দ্রুতগামী একটি ট্রাকের ধাক্কায় নিমিষেই বাবা ও ছেলে-মেয়েসহ পা হারিয়েছেন । ৭ মে বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের শাজাহানপুর উপজেলার আড়িয়াবাজার এলাকায় এ দূর্ঘটনাটি ঘটে। এতে ছেলে আসিফ (১২) ও মেয়ে রওজাকে (৭) বাবা লিটন মন্ডল (৩৫) এর পা হারায়। […]