নির্মাণ কাজে ধীরগতি, ঘাটাইল-সাগরদিঘী সড়কে জনদুর্ভোগ

খাদেমুল ইসলাম মামুন, ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি- টাঙ্গাইলের ঘাটাইল-সাগরদিঘী আঞ্চলিক সড়কে সাগরদিঘী বাজার অংশে সামান্য বৃষ্টিতে হাটু পানি জমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। যার কারণে যাতায়াত ও পণ্য পরিবহনে পোহাতে ভোগান্তি হয়। এলাকাবাসীর অভিযোগ, সড়কের নির্মাণ কাজের ধীরগতির কারণে এ জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে।

এলাকাবাসী ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জানান, ২২ কোটি টাকা ব্যয়ে ঘাটাইল-সাগরদিঘী সড়কের কামালপুর থেকে সাগরদিঘী হয়ে গুপ্তবৃন্দবন পর্যন্ত ১১ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়ন কাজ চলছে। কাজটি তদারকি ও তত্বাবধান করছে ময়মনসিংহের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ভাওয়াল কন্সট্রাকশন। গত এক বছর ধরে নির্মাণ কাজ চললেও সড়কের ২৫ শতাংশ কাজও শেষ হয়নি। ধীর গতিতে নির্মাণ কাজ চলায় সড়কে বিভিন্ন স্থানে বড় বড় গর্ত ও খানা খন্দের সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে সাগরদিঘী বাজার মোড় এলাকায় সামান্য বৃষ্টিতেই হাটু পানি জমে জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হয়।

ঘাটাইলের পাহাড়িয়া এলাকাটি আনারস, কাঠাল ও সবজি প্রধান এলাকা। এই এলাকার উৎপাদিত সকল ফল ফসল সবজি সাগরদিঘী বাজার এলাকা হয়ে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হয়। ফলে সাগরদিঘী চৌরাস্তা এলাকা দিয়ে প্রতিদিন শত শত পণ্যবাহী গাড়ি চলাচল করে। নির্মাণ কাজের ধীরগতির কারনে সামান্য বৃষ্টিতেই যানবাহনের চাপে সড়কের অনেক অংশ দেবে গেছে। সড়কে হাঁটু পানি জমে যান চলাচলসহ সাধারণ পথচারিদের চলাচল ব্যহত হচ্ছে। এ অবস্থায় পাহাড়ি এলাকার কাঠাল, আনারসসহ নানা ফল ও সবজির মতো পঁচনশীল পণ্য নিয়ে বিপাকে পড়ছেন কৃষকরা। ভাঙাচোরা সড়কে ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানসহ ভারী যানবাহন বিকল হয়ে পড়ায় সাধারণ মানুষের যাতায়াত ও যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে।

সাগরদিঘী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হেকমত সিকদার বলেন, সাগরদিঘী ব্যবসা নির্ভর এলাকা। সড়কের নির্মাণ কাজের ধীরগতির কারণে এলাকার জনসাধারণের হাট-বাজার, ব্যবসা বানিজ্য ও যাতায়াতে নজিরবিহীন ভোগান্তি হচ্ছে। জনগণের ভোগান্তির বিষয়টি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে বার বার অবগত করলেও তারা বিষয়টিকে পাত্তাই দিচ্ছে না।

সাগরদিঘী কলেজের অধ্যক্ষ নাসির উদ্দিন বলেন, গুরুত্বপূর্ণ এই সড়কের উপর নির্ভর করে পাহাড়ি এলাকার সামগ্রীক উন্নয়ন। প্রায় এক যুগের বেশি সময় ধরে সড়কটির বেহাল অবস্থা বিরাজমান। সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের উচিত দ্রুত সড়কের উন্নয়ন কাজ শেষ করে জনদুর্ভোগ দুর করা।

সড়কের নির্মাণ কাজের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ভাওয়াল কন্সট্রাকশনের স্বত্বাধিকারী ফকরুদ্দিন বাচ্চুর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আমিমুল এহসান জানান, করোনা সংক্রমণের কারণে নির্মাণসামগ্রীর অপ্রতুলতাসহ নানা কারণে নির্মাণকাজে সাময়িক ধীরগতি ছিল। গত সপ্তাহ থেকে আবার কাজ শুরু হয়েছে। আশা করছি দ্রুততম সময়ের মধ্যে সড়কের নির্মাণ কাজ শেষ হবে।

(খাদেমুল ইসলাম মামুন, ঘাটাইল  প্রতিনিধি)

নিউজ ডেস্ক

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Next Post

বৃহত্তর ময়মনসিংহে নির্মূল হচ্ছেনা কালাজ্বর

সোম জুন ২২ , ২০২০
  চতুর্দিকে আনারস ও কলাবাগান। মাঝখানে গ্রাম মাগন্তিনগর। যেদিকে তাকানো যায় শুধুই মাটির ঘর। এ ঘরের সাথে মিল রেখে হাস-মুরগীর মাটির খোঁয়াড়। কোন কোন বাড়িতে গোয়াল ঘর। এসব মাটির ঘর, খোঁয়াড় ও গোশালা হচ্ছে স্যান্ডফ্লাই বা বেলে মাছির নিরাপদ আশ্রয়স্থল। আর এসব বেলে মাছি যে রোগ ছড়ায় তার নাম কালাজ্বর। […]